Saturday , May 18 2024

চা খেয়ে ওজন কমানোর উপায়

ওজন কমাতেও যে চায়ের অবদান রয়েছে অনেক! চলুন তাহলে দেখে নেয়া যাক, কোন চা কীভাবে ওজন কমাতে সহায়ক। বিভিন্ন চা খেয়ে ওজন কমানোর উপায়, কিভাবে ওজন কমাবেন

পানির পরেই চা বিশ্বের সর্বাধিক উপভোগ্য পানীয়। আর যা কিছু হোক,  একধরনের স্নিগ্ধ, প্রশান্তিদায়ক  অনুভূতি এনে দিতে চায়ের কোনো জুড়ি নেই।  পৃথিবীতে চা প্রেমী মানুষের অভাব নেই তবে চা একেবারেই পছন্দ করেনা এমন মানুষ খুব কমই খুঁজে পাওয়া যাবে।
সর্বপ্রথম চীনে বাণিজ্যিকভাবে চায়ের উৎপাদন শুরু হয় ১৬৫০ খ্রিষ্টাব্দে। ভারতবর্ষে এর চাষ শুরু হয় ১৮১৮ খ্রিষ্টাব্দে। আর ১৮৫৫ খ্রিষ্টাব্দে ব্রিটিশরা সিলেটে সর্বপ্রথম চায়ের গাছ খুঁজে পেলে শুরু হয় বাংলাদেশে চায়ের চাষ।
উপকারিতা অপকারিতা নিয়ে চা সারাবিশ্বেই বহুল জনপ্রিয় একটি পানীয়। মানসম্মত এক কাপ চা আপনার মন সতেজ রাখতে যথেষ্ঠ তা নিশ্চিত করে বলে দেয়া যায়। তবে ওজন কমাতেও যে চায়ের অবদান রয়েছে অনেক!
 চলুন তাহলে দেখে নেয়া যাক,
কোন চা কিভাবে ওজন কমাতে সহায়ক-

পুদিনা চা খেয়ে ওজন কমানোর উপায়

পুদিনা চা এমন একটি চা,যা পান করলে খিদে কমে যায়।যারা সারাদিন খাই খাই করে এটা ওটা চিবোচ্ছেন নয়তো জাবর কাটছেন তাদের জন্য পুদিনা চা দারুন কাজে দিবে।এটাকে এক প্রকার খিদে নষ্ট করে ফেলাও বলা যেতে পারে।খিদে কম মানে কম খাওয়া।আর কম খেলে ওজন বাড়ার ভয় তো থাকে না। চিনি ছাড়া পুদিনা চা খেলে শরীর খুব কম ক্যালোরি গ্রহণ করে থাকে। এতে করে ওজন বাড়ার কোনো সুযোগ নেই।

লেবু চা খেয়ে ওজন কমানোর উপায়

যাদের ভুঁড়ি বেড়ে গেছে তাদের জন্য লেমন টি বা লেবু চা দারুণ কার্যকরী। লেবু বেলি ফ্যাট কমাতে সাহায্য করে। রোগা হতে চাইলে সকালে লেবুপানি খেতে বলেন ডায়েটিশিয়ানরা। ওজন কমানোর জন্য আপনি দিনে বার-কয়েক লেবু চা খেতেই পারেন। চায়ের স্বাদও মিললো,ভুঁড়িও কমলো।

সাদা চা খেয়ে ওজন কমানোর উপায়

হোয়াইট টি অন্যান্য চায়ের থেকে কম প্রসেসড হয়। এই চা একটু মিষ্টি, যারা মিষ্টিদ্রব্য পছন্দ করেন তাদের জন্য মন্দ নয়। তবে হোয়াইট টি-তে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ফাইবার। সাদা চা হজমে যেমন সাহায্য করে তেমনই শরীরে ফ্যাট জমতে বাধা দেয়। ক্যান্সার কোষকে নষ্ট করে মুখের স্বাস্থ্যের উন্নতি করে সাদা চা।

সবুজ চা খেয়ে ওজন কমানোর উপায়

ওজন কমাতে অতি পরিচিত চা হলো গ্রীন টি। শরীরের বাড়তি ওজন কমাতে অনেকেই এখন ঝুঁকছেন গ্রিন টি-র দিকে। গ্রীন টি-তে থাকা অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট মেটাবলিজম বাড়াতে সহায়ক। এর ফলে শরীরের ফ্যাট পুড়ে যায়। গবেষণায় দেখা গেছে, ১২ সপ্তাহ সঠিক ডায়েট আর গ্রিন টি খেয়ে প্রায় চার কিলোর বেশি ওজন কমিয়ে ফেলা যায়!

কালো চা খেয়ে ওজন কমানোর উপায়

মজার ব্যাপার হলো গ্রিন টি বা অন্য সব চায়ের থেকে বেশি জারণ হয় এই চা পাতায়। চা পাতা বাতাসের সংস্পর্শে এলে জারণ হয়। যার ফলে কালো রঙের হয়ে যায় এই চা পাতাগুলি। এতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট ওজন কমাতে সাহায্য করে।

ওজন কমানোর উপায় হিসেবে ওলং চা

ওলং টি এক ধরনের ট্র্যাডিশনাল চাইনিজ চা। এর স্বাদ একদম অন্যরকম হয়। বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, ওলং টি মেটাবলিজম বাড়ায় এবং ফ্যাট পুড়িয়ে ওজন কমাতে সাহায্য করে।

হার্বাল চা খেয়ে কিভাবে ওজন কমাবেন

হার্বাল টি তৈরি হয় গরম পানিতে বিভিন্ন ভেষজ, মশলা এবং ফল মিশিয়ে। এই চা পাতায় ক্যাফেইন থাকে না। হার্বাল চা-এর মধ্যে আদা চা, গোলাপ চা, রয়বস চা এবং জবার চা অন্যতম জনপ্রিয়। ওজন হ্রাস এবং চর্বি হ্রাস করতে এই চা কার্যকরী।

অশ্বগন্ধা চা খেয়ে ওজন কমানোর উপায়

অশ্বগন্ধা স্ট্রেস হরমোন কমাতে সাহায্য করে। স্ট্রেস বাড়লে শরীরে কর্টিসোল হরমোনের ক্ষরণ বাড়ে। যার ফলে শরীরে মেদ সঞ্চিত হয়। অশ্বগন্ধা স্ট্রেস কমিয়ে মেদ জমতে বাধা দেয়। গবেষণায় দেখা গেছে, চাপের পরিস্থিতিতে যাঁরা বেশি রিঅ্যাক্ট করেন তাদের শরীরে প্রদাহ বাড়ে এবং প্রদাহ যুক্ত হয় স্থূলতার সঙ্গে। স্ট্রেস কম করলে ওজনও বাড়বে না! তাই নিঃসন্দেহে অশ্বগন্ধা চা আপনার জন্য সর্বোত্তম।

About admin

Check Also

৩৫টি ঔষধি গাছের নাম ও উপকারিতা

গাছ আমাদের দৈনন্দিন জীবনের এক অবিচ্ছেদ্য অংশের নাম। কিন্তু আমরা কি ঔষধি গাছের নাম ও …