প্রেম করা ভাল না খারাপ? বৈজ্ঞানিক ভিত্তিতে প্রেম কি?

মানুষ যুগ যুগ ধরে একে অপরের প্রেমে পড়ে আসছে। কিন্তু, কিসের কারণে মানুষ প্রেমে পড়ে, বৈজ্ঞানিক ভিত্তিতে প্রেম কি এবং প্রেম করা ভাল না খারাপ তার উত্তর আমরা প্রত্যেকে কম বেশি জানার আগ্রহবোধ প্রকাশ করি। আর এই সকল কিছুর উত্তর আজকের এই আর্টিকেলে পেয়ে যাবেন। সাধারণত প্রেম সম্পর্কিত যে প্রশ্নগুলো বেশি করা হয় তার উত্তর এই আর্টিকেলে দেওয়া হবে। প্রেমের গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর জানতে হলে আর্টিকেলের শেষ অবধি পর্যন্ত সঙ্গে থাকুন

প্রেম কি?

বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা অনুসারে প্রেম হচ্ছে হরমোনের খেলা। ডোপামিন নামক হরমোন প্রেমের অনুভূতি জাগাতে বেশি সাহায্য করে। ডোপামিন হরমোন ব্রেনে যখন নির্গমন হয় তখন অন্যান্য নেশার মত প্রেমের নেশায় মানুষ আকৃষ্ট হয়ে যায়। এছাড়া আরো বিশেষ হরমোন রয়েছে যা প্রেমের অনুভূতি জাগাতে ভূমিকা রাখে।

সাধারণ অর্থে প্রেম হলো বিপরীত লিঙ্গের প্রতি আসক্ত হওয়া। অর্থাৎ, ছেলে এবং মেয়ে একে অপরের প্রতি ভালোবাসায় আকৃষ্ট হওয়া। আরো সহজ করে বলতে গেলে যখন কোন ছেলে বা মেয়ে বিপরীত লিঙ্গের মেয়ে বা ছেলের সৌন্দর্যে অথবা গুণে আকৃষ্ট হয়ে ভালোবাসতে ইচ্ছে করে এবং নিজের জীবনের সঙ্গি করতে ইচ্ছে করে মূলত সেটাই হচ্ছে প্রেম।

 

 

বিশেষ করে কারোর প্রতি ভালো লাগার অনুভূতি সৃষ্টি হলে এবং সেই ভালো লাগা ব্যক্তিকে কাছে পেতে ইচ্ছা পোষণ করলে তাকে প্রেম বলা যায়। যখন একজন ছেলে মেয়ের প্রতি আকৃষ্ট হয় এবং একজন মেয়ে ছেলের প্রতি আকৃষ্ট হওয়াই প্রেমের অন্যতম লক্ষণ।

প্রেম করা ভাল না খারাপ?

প্রত্যেকটি জিনিসের উপকারি এবং অপকারি দুটি দিক থাকে। ঠিক তেমনি প্রেমেরও দুটি দিক রয়েছে। প্রেমকে সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারলে উপকারিতা পাওয়া যায়। আর কাজে লাগাতে না পারলে ক্ষতির পরিমাণ বা অপকারি দিকটি বেশি লক্ষ্য করা যায়। তবে বাস্তব জীবনের প্রমাণের ভিত্তিতে প্রেমের ক্ষতিকর দিক বেশি দেখা যায়।

 

 

বিশেষ করে অল্প বয়সে আবেগের কারণে ছেলে মেয়েরা প্রেমে জড়িয়ে পড়ে। আর এই অল্প বয়সে ছেলে মেয়েরা প্রেমের অনুভূতিকে নিজের আয়ত্তে রাখতে পারে না। প্রেমের অনুভূতিকে আয়ত্তে রাখতে না পারার কারণে বিভিন্ন ধরনের ভুল সিদ্ধান্ত নিয়ে বসে। প্রেমের আবেগের বশে ভুল সিদ্ধান্ত নেওয়া জীবনকে ভবিষ্যতের জন্য বিপদগামী করে তোলে। একটা সময় জীবনের কোন এক পর্যায়ে সেই ভুলের মাশুল দিতে হয়।

প্রেম করলে একে অপরের প্রতি দায়বদ্ধতা থাকে। আর সেই প্রেমের দায়বদ্ধতা থেকেই এক সঙ্গে চলতে হয় এবং অনেক কিছু শেয়ার করতে হয়। অধিক প্রেমে আকৃষ্ট ব্যক্তিরা বেশির ভাগ সময় নিজের প্রেমিক/প্রেমিকাকে নিয়ে চিন্তায় মগ্ন থাকে। তখন তার ভবিষ্যত জীবনের জন্য সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়া থেকে ব্যাহত হয়। যার ফল সরূপ জীবনকে রঙিন করে সাজাতে পারে না।

অন্যদিকে প্রেমহীন ব্যক্তিরা এক ধরনের স্বাধীন চিন্তার জগতে বাস করে। যা নিজের ভবিষ্যৎ জীবনকে নিয়ে বেশি চিন্তা করতে পারে এবং সেই চিন্তার ভিত্তিতে জীবনকে রঙিন করার কাজে লাগাতে পারে। জীবনের এক পর্যায়ে গিয়ে তারা জীবনকে বেশি উপভোগ করতে পারে।

প্রেমের অধিক পরিমাণে খারাপ দিক থাকলেও অনেকে সুফল ভোগ করে। যা প্রেম করে নিজের জীবনকে গুছাতে পারে। এছাড়া প্রেমে যতই খারাপ দিক থাকুক সবাই জীবনে একবার হলেও কারোর না কারোর প্রেমে পড়ে।

প্রেমের উপকারিতা

প্রেমের যেসব উপকারি দিক সমূহ রয়েছে নিচে তা দেওয়া হল –

  • কিভাবে প্রিয়জনকে কেয়ারিং করতে হয় তা প্রেম থেকে শেখা যায়।
  • মানসিক দুশ্চিতা ও হতাশা থেকে মুক্ত থাকতে প্রেম বেশ কার্যকরী।
  • অন্যের প্রতি বিশ্বাস জোগাতে প্রেম অত্যন্ত সহায়ক ভূমিকা রাখে।
  • সুন্দর প্রেম ভালোবাসা মনকে প্রফুল্ল ও হাসি-খুশি রাখতে সাহায্য করে।
  • সুখী প্রেমে রক্তচাপ ঠিক থাকে এবং শারীরিক কার্যক্ষমতা বাড়ে।

প্রেমের অপকারিতা

প্রেমের কারণে যেসব ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয় নিচে তা দেওয়া হল –

 

 

  • প্রেমে সফল হতে না পারলে অনেকে খারাপ পথ বেছে নেয়।
  • অনেক সময় প্রেমের কারণে নিজের বাস্তবিক লক্ষ্য পূরণ ব্যাহত হয়।
  • পকেট খালি থাকার অন্যতম কারণ হচ্ছে প্রেম।
  • ভবিষ্যৎ জীবন গড়ার অনেক মূল্যবান সময় প্রেমের কারণে নষ্ট হয়ে যায়।
  • প্রেমের কারণে ছাত্র-ছাত্রীদের পড়া লেখার অনেক বেশি ক্ষতি হয়।

FAQ

প্রেম কিভাবে করে?

##  নিজের পছন্দের মানুষের সাথে প্রেম করতে হলে যে কোন ভাবে ভালোবাসার কথা প্রকাশ করতে হবে। যেমন- পছন্দের মানুষের মোবাইল নাম্বার অথবা সোশ্যাল অ্যাকাউন্ট সংগ্রহ করে এসএমএস এর মাধ্যমে নিজের মনের কথা জানাতে হবে। এছাড়া অন্যের মাধ্যমে সরাসরি ভালো লাগার কথা পছন্দের মানুষকে জানাতে পারেন। এরপর পছন্দের মানুষটি যেন আপনাকে পছন্দ করে তার ব্যবস্থা করতে হবে। একটা সময় একে অপরের প্রতি ভালো লাগার বন্ধন তৈরি হলে প্রেম খেলা শুরু হয়ে যাবে।

প্রেমে পড়লে কি হয়?

##  সাধারণত প্রেমে পড়লে মনে উরু উরু ভাব থাকে। পছন্দের মানুষের কথা সারাক্ষণ চিন্তা করতে ইচ্ছে করে এবং তাকে নিয়ে মনের মধ্যে নানা ধরনের স্বপ্ন জাগে। এছাড়া পছন্দের মানুষকে সব সময় চোখে চোখে রাখতে বা দেখতে ইচ্ছা করে।

প্রেম করা কি ভালো?

## প্রেমকে নিজের আয়ত্তে রাখতে পারলে প্রেম করা অবশ্যই ভালো। কিন্তু আয়ত্তে রাখতে না পারলে বা প্রেমে অধিক ইমোশনাল হয়ে গেলে তখন খারাপ দিকটাই বেশি হবে। মূলত অল্প বয়সে প্রেম করা কখনই ভালো না।

ভালোবাসা কিভাবে হয়?

## এক কথায় বলতে গেলে দুটি মনের মিলনই হচ্ছে প্রেম বা ভালোবাসা। আর ভালোবাসার মানুষকে তার প্রতি ভালো লাগার কথা জানাতে হয় এবং তাকে বুঝার চেষ্টা করতে হয়। এছাড়া ভালোবাসার মানুষের পছন্দ লাগা কাজ করতে হয়। এভাবে সুন্দর ভালোবাসা সৃষ্টি হয়।

ভালোবাসার ব্যাখ্যা কি?

## যখন কোন ব্যক্তির কাজ-কর্ম, চলা-ফেরা সব কিছু ভালো লাগে তখন তার প্রতি ভালোবাসার সৃষ্টি হয়। মূলত কাউকে ভালো লাগার অনুভূতিই হচ্ছে ভালোবাসা। আর সেই ভালোবাসার মানুষের সাথে নিজের মূল্যবান সময় কাটাতে ভালো লাগে এবং নিজের অনুভূতিগুলো শেয়ার করতে ইচ্ছে করে।

প্রেম করলে কি পাওয়া যায়?

## মূলত প্রেম করলে ভালোবাসার মানুষের সাথে সুখ, দুঃখ ও অনুভূতিগুলো ভাগা-ভাগি করা যায়। নিজের মূল্যবান সময়গুলো তার সাথে কাটাতে ভালো লাগে এবং সেই সাথে ভালো লাগার রোমান্টিক মুহূর্ত কাটানো যায়।

 

 

সর্বশেষঃ উপরের উল্লেখিত আর্টিকেলের সাহায্যে আপনি নিশ্চই প্রেম কি এবং প্রেম করা ভাল না খারাপ সকল ধরনের প্রশ্নের উত্তর পেয়েছেন। প্রেম সম্পর্কিত আপনার কোন ধরনের মতামত অথবা জানার প্রশ্ন থাকলে নিচের কমেন্ট বক্সে জানাতে পারেন। এছাড়া আর্টিকেলটি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে পারেন। ধন্যবাদ।।

 

Check Also

নিষ্প্রাণ ত্বকে প্রাণ ফেরাবে নারকেলের দুধ

গরম কিংবা শীতে যেমন ত্বকের আলাদা যত্নের প্রয়োজন তেমনি বর্ষায়ও চাই ত্বকের বাড়তি যত্নের। বর্ষাকালে …