টাকা কিভাবে দেশ থেকে পাচার হয় সরকারকে ফাঁকি দিয়ে

সরকারকে না জানিয়ে দেশের বাইরে টাকা নেওয়ার একটাই পদ্ধতি। সেটা হলো, টাকা নিজের সাথে (পকেট, ব্যাগ) গোপনে, নিয়ে যাওয়া। আপনি এক দেশ থেকে আরেক দেশে গেলেন। কাস্টমস অফিসার আপনাকে তল্লাশি করবে। তখন আপনার সাথে থাকা গোপন টাকা যদি তারা খুজে না পায়, তাহলে আপনি টাকাটা অন্য দেশে পাচার করে ফেললেন। এটাকে বলে সরকারকে ফকি দিয়ে টাকা পাচার।

প্রতি বছর আমাদের দেশ থেকে হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার হয়। ওরা কি ব্যাগ ভরে টাকা নিয়ে যায়? না, ওরা বিভিন্ন কায়দায় ব্যাংক এর মাধ্যমেই টাকা বিদেশে পাঠায়। এই কাজটি সরকারকে ফাকি দিয়ে করা যায় না। সরকারকে জানিয়েই করে। দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা, এটা না ঠেকিয়ে, উল্টে সহায়তা করে।

অনেক বছর পরে দেশে ফিরেছিলাম। বাংলাদেশে অবস্থান করছি, এমন এক সময় – ভিসার জন্য, অস্ট্রেলিয়ার পুলিশ এর ছাড়পত্র প্রয়োজন হল। এজন্য অস্ট্রেলিয়ার পুলিশ বিভাগকে ১১৫ ডলারের একটি ফি দিতে হবে। মতিঝিল এলাকার ব্যাংকগুলিতে দরজায় দরজায় ঘুরে, অমি ১১৫ ডলার দেশের বাইরে পাঠাতে পারিনি। একটি বেসরকারি ব্যাংক এর ভাইস-প্রেসিডেন্ট, ফোন করলেন। তাতেও কাজ হলো না। অগত্যা, অস্ট্রেলিয়াতে রয়েছে এমন এক বন্ধু সেই ফী দিয়ে দিয়েছিল।

মেয়েদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ৩টি ত্বকের যত্ন টিপস

যে দেশ থেকে মাত্র একশ ডলার বিদেশে পাঠানো যায় না, সেই দেশ থেকে প্রতি বছর গড়ে পঞ্চাশ কোটি ডলার, কিভাবে পাচার হয় ?

এই প্রশ্নের উত্তরে আপনি বিভিন্ন কায়দা, ফন্দি ইত্যাদির বর্ণনা দিতে চাইবেন। এসব ফন্দি আমিও জানি। এসব আলোচনা করে কিছু নতুন মানুষকে ফন্দি শেখাতে চাই না। যত রকমের ফন্দির কথাই বলে না কেন, সব ফন্দির মূলমন্ত্র একটি – দুর্নীতি। দায়িত্বশীল কর্মকর্তা, টাকা পাচারে সাহায্য করে।

যারা আমাকে একশ ডলার পাঠাতে দেয়নি, তারাই অন্যের লক্ষ ডলার পাঠিয়ে দেয়। এর মধ্যে কোন গোপনীয়তা বা ফাকি দেওয়া নেই। প্রকাশ্যেই তারা এসব করে।

About admin

Check Also

মানবদেহের ২১ টি মজার তথ্য যা অনেকেরই অজানা

অনেকেরই অজানা মানবদেহের ২১ টি মজার তথ্য

আমাদের ধারণা, আমরা নিজেদের দেহ সম্পর্কে পুরোপুরি জানি। কিন্তু অজানা রয়েছে অনেক কিছুই। আমরা সাধারণত …